দখিনা দর্পণ জলাবদ্ধতায় জেলায় ৫৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ অনিশ্চিত – দখিনা দর্পণ
Image

মঙ্গলবার  •  ৫ বৈশাখ ১৪২৮ • ১৮ জানুয়ারী ২০২২

Add 1

জলাবদ্ধতায় জেলায় ৫৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ অনিশ্চিত

প্রকাশিতঃ ১২ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার, ৯:৩৩ পূর্বাহ্ন । পঠিত হয়েছে ৭১ বার।

জলাবদ্ধতায় জেলায় ৫৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ অনিশ্চিত

পূর্ব থেকে জলাবদ্ধতা এবং অসময়ের ভারী বৃষ্টি চলতি বোরো ধান মৌসুমে বীজতলার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এতে চরম হতাশার মধ্যে পড়েছেন কৃষকরা।
এ বছর কয়েক দফা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে আমন মৌসুমে ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের শেষ ভরসা ছিল বোরো ধান। আমনের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনেক স্বপ্ন নিয়ে চাষিরা বোরো ধানের আবাদের জন্য বীজতলা তৈরি করেন। প্রকৃতির এই বৈরীতায় নষ্ট হয়ে গেছে বীজতলার চারা। ফলে আবারও স্বপ্ন ভঙ্গ বোরো চাষীদের। বার বার প্রকৃতিক বিপর্যয়ে বোরো আবাদ নিয়ে চরম হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন এ সব কৃষকরা।
জানুয়ারি মাসের শুরু থেকে এলাকায় পুরোদমে বোরো ধানের চারা রোপণের মৌসুম শুরু হয়। এ সময়ে অধিকাংশ জমিতে চাষাবাদ শুরু করা হয়। গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে বেশিরভাগ বোরো বীজতলার চারা সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। দিশে হারা হয়ে পড়েছে বোরো চাষের উপর নির্ভরশীল এই সকল চাষীরা।

এদিকে জলাবদ্ধতার কারনে বোরো আবাদের টার্গেট পূরণ না হওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে কৃষি কর্মকর্তারা। সাতক্ষীরার দেবহাটা, আশাশুনি ও সদর উপজেলার বিভিন্ন সূত্র ও চাষিদের কাছ থেকে জানা যায়, এ বছর নবান্নের উৎসবে মেতে উঠতে পারেননি তারা। যে বিলগুলোতে থাকার কথা সোনালী ধানের সমারোহ, সেই বিলগুলো এখনো পানিতে থৈ থৈ করছে। পনি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ করে সেখানে অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের করেছেন প্রভাবশালী মহল। এতে কপাল পুড়েছে গরীব চাষীদের।
আমন ফসল থেকে বঞ্চিত হয়েছে হাজার হাজার কৃষক। হেমন্তের এই দিনে যে গ্রামগুলোর উঠোন ভরা থাকতো নতুন ধানের পালায়, সেই উঠোনে এবার এক আঁটি ধানও দেখা যায়নি। নবান্নের দিনে যে কৃষাণী ব্যস্ত থাকতেন
ঘর গোছাতে সেই কৃষাণী এবার অলস সময় পার করছেন। কপালে তার চিন্তার ভাজ। বোরো আবাদ নিয়েও কৃষক রয়েছেন দুশ্চিন্তায়। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ফিংড়ি গ্রামের আবুল হোসেন অভিযোগ কওে বলেন, খাল, বিল ও নদীতে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করার কারণে পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। অন্যান্যবার রবি মৌসুমে ফিংড়ি মাঠে ধান, আলু, কপি, পেঁয়াজ, বেগুন, টমেটো, গম, খেশারীসহ বিভিন্ন ফসলের চাষ করতাম। পানির কারণে এবার কিছুই চাষ করতে পারিনি।
তালা উপজেলার আমতলা ডাঙ্গা গ্রামের হাবিবুর রহমান বলেন, প্রতি কেজি বীজ ধান ৪৪০ থেকে ৪৭০ টাকা দরে কিনতে হয়েছে। এই চড়া মূল্যের বীজ বপন করে যে চারা জন্মেছিল একটানা বৃষ্টির কারণে চারা পানিতে ডুবে নষ্ট হয়ে গেছে। পানি না কমলে নতুন করে বীজতলা তৈরী করা যাচ্ছে না।
জুজখোলা গামের কৃষক হাবিবুর রহমান, রফিকুল সরদার, আমছার আলী, ইনছার আলী বলেন, বোরোর বীজতলা করেও বৃষ্টির কারণে চারা বানাতে পারিনি। নতুন করে বীজতলা তৈরীর কাজ করছি। তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজিরা বেগম জানান, গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে বীজতলার ক্ষতি হয়েছে। তবে পরিস্থিতি ঠিক হয়ে যাবে। এ ব্যাপারে চাষিদের নানাভাবে পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।
সাতক্ষীরা সদরের কৃষক মফিজুল ইসলাম জানান, জেলার সর্ববৃহৎ বিল দাঁতভাঙ্গা, মালিনি, হাজিখালি, বুড়ামারা, পালিচাঁদ, চেলারবিল, ডাইয়ের বিল, ঘুড্ডির বিল, কচুয়ার বিল, ঢেপুর বিল, লাবসার বিল, বল্লীর বিল ও পদ্মবিলসহ অর্ধশতাধিক বিল এখনও ফসল শূন্য। এসব বিল ও গ্রামের পানি নিষ্কাশনের পথ বেতনা, মরিচ্চাপ ও সীমান্তের ইছামতি নদী। এসব নদী বিল ছাড়া উঁচু হয়ে গেছে। ফলে প্রতি বছর বিলগুলো জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছে। ফলে আমনের আবাদ হয়নি। পাশাপশি বোরো আবাদও অনিশ্চিত।
সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ সূত্রে জানা যায়, সাতক্ষীরায় মোট এক লক্ষ ৭৭ হাজার ৮১৪ হেক্টর জমির মধ্যে আবাদি জমির পরিমাণ প্রায় এক লক্ষ ৩১ হাজার ৭৮৮ হেক্টর। চলতি মৌসুমে সাতক্ষীরায় ৭৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরোআবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে জলাবদ্ধতার কারণে ৫৫ হাজার ৭৮৮ হেক্টর জমিতে এবার বোরো চাষ অনিশ্চিত।
সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে আরও জানা যায়,চলতি বোরো মৌসুমে সাতক্ষীরায় ৭৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এবার সবচেয়ে বেশি বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় এবং সবচেয়ে কম লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে শ্যামনগর উপজেলায়। বোরো মৌসুমে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ২৩ হাজার ৪১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ৪ হাজার ৯১০ হেক্টর ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ১৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। কলারোয়ায় ১২ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতওে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ২হাজার ১৫০ হেক্টর ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ১০ হাজার ৪০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। তালায় ১৯ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ৫ হাজার ৮৫০ হেক্টর ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ১৩ হাজার ৬০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। দেবহাটায় ৫ হাজার ৯২০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ২ হাজার ৮২০ হেক্টর ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ৩ হাজার ১০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। কালিগঞ্জে ৫হাজার ৫১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ১হাজার ১০হেক্টর ও উফশী জাতেরধান চাষের জন্য ৪ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। আশাশুনিতে ৭ হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ৩ হাজার ৪০০ হেক্টর ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ৪ হাজার হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে এবং শ্যামনগর উপজেলায় ১ হাজার ৭৬০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর ভিতরে হাইব্রিড জাতের ধানচাষের জন্য ৩৬০ হেক্টও ও উফশী জাতের ধান চাষের জন্য ১ হাজার ৪০০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। যথাক্রমে জেলার ৭টি উপজেলার ৭৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের জন্য ৫০৫ হেক্টর জমি বীজতলা হিসেবে ব্যবহৃত হবে।
সার্বিক বিষয়ে সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো: নুরুল ইসলাম জানান, চলতি মৌসুমে ৭৬ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। জলাবদ্ধতা না থাকলে বোরোর আবাদ আরও বেশি হতো বলে জানান তিনি।

এ জাতীয় আরো সংবাদ

ইটভাটার খাদ্য হওয়ায় বিলুপ্তির পথে খেজুর গাছ

প্রকাশিতঃ ১৭ জানুয়ারী ২০২২, সোমবার, ১১:৩৩ অপরাহ্ন

উপকূলীয় কৃষি জমিতে লবণাক্ততা বৃদ্ধি ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব...

প্রকাশিতঃ ১৬ জানুয়ারী ২০২২, রবিবার, ১১:৫৫ অপরাহ্ন

শতকের ঘর পার করতে পারেনি ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থী: আশাশুনির...

প্রকাশিতঃ ১১ জানুয়ারী ২০২২, মঙ্গলবার, ১১:১৯ অপরাহ্ন

নর্দান ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ইউসুফ আবদুল্লাহ গ্রেপ্তার

প্রকাশিতঃ ১০ জানুয়ারী ২০২২, সোমবার, ১০:৪৬ অপরাহ্ন

ভোমরা সিএন্ডএফ’র নির্বাচন ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্থগীত

প্রকাশিতঃ ৯ জানুয়ারী ২০২২, রবিবার, ১১:৩২ অপরাহ্ন

গভীর রাতে কলারোয়ায় এক বাড়িতে বোমা বিস্ফোরণ

প্রকাশিতঃ ৬ জানুয়ারী ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১০:১৬ অপরাহ্ন

আশাশুনিতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ৫ জন গুলিবিদ্ধ

প্রকাশিতঃ ৬ জানুয়ারী ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৫:৫০ অপরাহ্ন