সাতক্ষীরা জেলার কালিঞ্জের নুরুল ডাকাতের হাতে জিম্মি শত শত মানুষ পুলিশের আইজিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ সাতক্ষীরা জেলার কালিঞ্জের নুরুল ডাকাতের হাতে জিম্মি শত শত মানুষ পুলিশের আইজিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ – দখিন দর্পণ
Image
Sorry, no posts Have .......

মঙ্গলবার  •  ১১ কার্তিক ১৪২৮ • ২৬ অক্টোবর ২০২১

সাতক্ষীরা জেলার কালিঞ্জের নুরুল ডাকাতের হাতে জিম্মি শত শত মানুষ পুলিশের আইজিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ১৬ অগাস্ট ২০২০, রবিবার, ১১:০৪ পূর্বাহ্ন । পঠিত হয়েছে ১৯৭ বার।

সাতক্ষীরা জেলার কালিঞ্জের নুরুল ডাকাতের হাতে জিম্মি শত শত মানুষ পুলিশের আইজিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ

ডেস্ক রিপোর্ট : সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার শত শত
মানুষ নুরুল ডাকাতের হাতে জিম্মি কয়েকটি হত্যাসহ কয়েক ডজন মামলা
থাকলেও এলাকায় ঘুরে বেড়ায় বহাল তবিয়তে। তথ্য নানুসন্ধানে জানা যায় জেলার
কালিগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে বন্দোকাটি গ্রামের মৃত আশরাফ মোড়লের
পুত্র নুরুল ইসলাম মোড়ল ওরফে নুরুল ডাকাত এর হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে
এলাকাবাসী। তার নামে জেলার কালিগঞ্জ, দেবহাটা থানাসহ বিভিন্ন থানায়
রয়েছে মামলার পাহাড়।
জি,আর-৭৭/২০০০ (কালিঃ), জি,আর-৭১/২০১৮ (কালিঃ),
জি,আর-০২/২০১৮ (দেবঃ) যা তিনটি হত্যা মামলা, এছাড়া সি,আর-২১২/২০১৮
(কালিঃ), চাঁদাবাজী মামলা কালিগঞ্জ থানায় জি,ডি নং-৯৭০, তারিখ
২২/০৫/২০১৮, জি,ডি-৭৯৮, তারিখ ২০/১১/২০১৮, সি,আর,পি ৩৩০/২০১৭, জি,ডি
নং-৪২৮, তারিখ ১০/১২/২০১৯, জি,ডি নং-৪২৯, তারিখ ১০/১২/২০১৯ কালিগঞ্জ
থানা, এছাড়া আদালতে রয়েছে অনেক মামলা ও থানায় রয়েছে সাধারণ ডায়েরী।
কথা হয় এলাকায় একাধিক ভূক্তভোগীদের সাথে তারা জানায় নুরুল ডাকাতের
অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ ও থানায় মামলা করলে সে তার বাহিনী
দিয়ে তাদের উপর হামলা করে এবং থানায় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে। তার ভয়ে
সবাই তার অত্যাচার সহ্য করে কিন্তু প্রতিবাদ করে না। নুরুল ডাকাত কালিগঞ্জ
উপজেলার বিষ্ণুপুর, কালিকাপুর ও বন্দকাটি গ্রামের কয়েকশত ভূমিহীনদের তাদের
নিজ নামে বন্দোবস্তকৃত ১৮০ বিঘা জমি থেকে উচ্ছেদ করে নিজে ও তার
বাহিনীর সদস্যরা মিলে মাছের ঘের করছে। গত ২০১৩ সালে ঐ এলাকার মুহাম্মদ
আলী মোড়লের পুত্র আমিরুল মোড়ল জানায় নুরুল ডাকাত তার স্থানীয় বাঁশতলা মাছের
সেটে চাঁদার দাবীতে হামলা চালিয়ে আহত করে। পরে এলাকাবাসীর চাপে নুরুল
ডাকাত বিষয়টি মীমাংসা করে নেয়। উপজেলার বন্দেকাটি গ্রামে মৃত আনছার
গাজীর পুত্র মোনায়েম গাজীর ২শ বিঘার জমির মধ্যে ১৫ বিঘা দখল করে নেয় নুরুল।
২০১৫ সালে আব্দুর রশিদ নামে এক ব্যক্তিকে হত্যা করে। এছাড়া দেবহাটা উপজেলার
পারুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রতন হত্যা প্রচেষ্টা মামলার আসামী। বিষ্ণুপুর
ইউনিয়নের আব্দুল কুদ্দুস ওরফে ধান কুদ্দুস কে রাস্তায় গতিরোধ করে ৭০ হাজার
টাকা ছিনিয়ে নেয়। নেঠবাশপুর গ্রামের নজরুল গাজীর পুত্র তরিকুল গাজী
জানায় তার কাছ থেকে নুরুল ডাকাত মাছের পোনা বাকী নিয়ে টাকা না দিয়ে
তাকে হুমকি ধামকি দিয়ে তাড়িয়ে দেয়। ২০১৭ সালের শেষের দিকে একই এলাকার
নীলকণ্ঠপুর গ্রামের মৃত বদরউদ্দীন সরদারের পুত্র মোঃ খলিল সরদার এর নিকট ১ লক্ষ টাকা
চাঁদা দাবী করে। চাঁদা না দিলে তার ঘেরে এসে মাছ খলিলকে মারধর করে ও মাছ লুট
করে নেয়। এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী থানায় মামলা করে। এছাড়া বেড়াখালী গ্রামের
জনৈক রহমানের স্ত্রীকে অস্ত্র দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। নুরুল কুশুলিয়া
ইউনিয়নের চলতি বছর জুলাই মাসে জনৈক মাখন ও তার ভাইয়ের মধ্যে জমির
বিরোধ হলে মাখনের পক্ষে গিয়ে টাকার বিনিময়ে জমি দখল করে। চলতি বছর জুন
মাসে বন্দোকাটি মিজানুর রহমান ওরফে পোনা মিজান। মাছের পোনার গাড়ী
থেকে ২ ব্যাগ মাছের পোনা লুট করে নেয়।নুরুল ইসলাম বর্তমানে জেলে থাকার কারণে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।